মেধাবী শারমিন নিজের পায়ে দাড়াতে চেয়েছিলেন, অভাবের কারণে আত্মহত্যা

সাজ্জাদুল আলম শাওন, জামালপুর থেকে: জামালপুরের মেলান্দহে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে কলেজ ছাত্রীর আত্মহত্যার খবর পাওয়া গেছে। উপজেলার চর সগুনা গ্রামের ছলিম উদ্দিনের মেয়ে শারমিন আক্তার (২০) আত্মহত্যা করেছে বলে যানা যায়। সে জামালপুর সরকারি আশেক মাহমুদ কলেজের অনার্স (অর্থনীতি) ২য় বর্ষের শিক্ষার্থী। পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম বাবা অসুস্থ হওয়ায় পড়াশোনার খরচ যোগাতে অপারগতা প্রকাশ করে ও বিয়ে দিতে চায় শারমিনকে। মেধাবী শারমিন পড়াশোনা করে নিজের পায়ে দাড়াতে চেয়েছিলেন। পড়াশোনার ব্যয় নিয়ে ১২ সেপ্টেম্বর রাতে পরিবারের সদস্যদের সাথে বাকবিতণ্ডা হয়। ১৩ সেপ্টেম্বর সকালে শারমিনের মা তার বাবাকে চিকিৎসার জন্য কবিরাজের কাছে গেলে ফাঁকা বাড়িতে কাউকে না পেয়ে অভিমান করে গোসল খানায় গলায় ওড়না পেঁচিয়ে ফাঁস দেয়। বিষয়টি প্রতিবেশীরা টের পেয়ে গোসলখানার দরজা ভেঙ্গে শারমিনের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে পুলিশকে খবর দেয়।

মেলান্দহ থানার উপপরিদর্শক দিলীপ চন্দ্র সরকার বলেন, পরিবারের অভাব-অনটনের কারণে আত্মহত্যা করেছে বলে পরিবারের কাছ থেকে শুনেছি। নিহতের গায়ে আঘাতের কোনো চিহ্ন নাই, শুধু গলায় ফাঁস দেওয়ার চিহ্ন থাকায় প্রাথমিকভাবে আত্মহত্যা বলে মনে হচ্ছে। মেলান্দহ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এম এম ময়নুল ইসলাম বলেন, পরিবারের পক্ষ থেকে কোনো অভিযোগ করা হয়নি। তবে এ ঘটনায় একটি অপমৃত্যু মামলার প্রস্তুতি চলছে।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *